মানিকগঞ্জ-২

আ.লীগের অফিস ভাঙচুরের অভিযোগে বিএনপি প্রার্থী মঈনুলের বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশ : ২৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ১১:৫২

সাহস ডেস্ক

আওয়ামী লীগের নির্বাচনি অফিস ভাঙচুরের অভিযোগে মানিকগঞ্জ-২ আসনের বিএনপি প্রার্থী মঈনুল ইসলাম খানসহ ৩৩ জনকে সুনির্দিষ্ট ও আরও ৪০/৪৫ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে মামলা দেওয়া হয়েছে। হরিরামপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুর রহমান এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

হরিরামপুর থানা পুলিশ ও মামলার বাদী কছের শেখসহ প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা গেছে, ২৫ ডিসেম্বর (মঙ্গলবার) বেলা সাড়ে বারোটার দিকে চালা ইউনিয়নের দিয়াবাড়ী বাজার এলাকায় আওয়ামী লীগের নির্বাচনি অস্থায়ী কার্যালয়ে বিএনপি প্রার্থী মঈনুল ইসলাম খান শান্ত ও তার ৩৩ জন সহযোগীসহ আরও অজ্ঞাত ৪০/৪৫ জন অজ্ঞাত পরিচয়ের ব্যক্তি হামলা চালিয়ে অফিস ভাঙচুর করেন। এসময় তারা নির্বাচনি ক্যাম্পের চেয়ার টেবিল ভাঙচুর করে চলে যান।

মামলার বাদী কছের শেখ এজাহারে উল্লেখ করেন, বেলা সাড়ে বারোটার দিকে তিনি নির্বাচনি অফিসে বসে ছিলেন। এসময় বিএনপি দলীয় ধানের শীষের প্রার্থী মঈনুল ইসলাম খান শান্ত’র নির্দেশে স্থানীয় মোজাফ্ফর হোসেন চৌধুরী ও চালা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শফিক বিশ্বাসসহ ৫/৬ জন তাকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে এলোপাতারি মারপিট করে আহত করেন।

পরে আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাকর্মীরা আহত কছের শেখকে উদ্ধার করে হরিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে তার পায়ে কয়েকটি সেলাই দেন কর্তব্যরত চিকিৎসক।

এদিকে, এই ঘটনায় আহত কছের শেখ বাদী হয়ে হরিরামপুর থানায় একটি মামলা করেন। মামলা নম্বর-১৪।

এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ-২ (সিংগাইর-মানিকগঞ্জ সদরের একাংশ- হরিরামপুর) আসনের বিএনপি প্রার্থী মঈনুল ইসলাম খান শান্ত জানান, তিনি কিংবা তার সমর্থকরা আওয়ামী লীগের কোনও নির্বাচনি কার্যালয় ভাঙচুরসহ কাউকে মারধর করেননি। তিনি অভিযোগ করেন, ‘হরিরামপুরের ঝিটকা ও মাচাইনসহ আরও বেশ কয়েকটি এলাকায় গণসংযোগ করার কথা থাকলেও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের হামলা ও বাঁধার কারণে তা করতে পারেননি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত