ডিজিটাল বাংলাদেশের মন্ত্রিসভায় আসছে নতুন চমক

প্রকাশ : ০৪ জানুয়ারি ২০১৯, ১৩:১২

সাহস ডেস্ক

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়া আওয়ামী লীগ টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করতে যাচ্ছে। সংসদ সদস্যদের শপথগ্রহণের পরই শুরু হয়ে গেছে মন্ত্রিসভা গঠনের কাজ। সোমবার মন্ত্রিসভা গঠন করা হবে। এবারের মন্ত্রিসভা হবে চমকে ঠাসা। ধারণা করা হচ্ছে নব গঠিত মন্ত্রী সভায় আসবে অনেক নতুন মুখ বাদ পড়তে পারেন পুরাতন অনেকেই। বর্তমান মন্ত্রিসভায় ৪৪ মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী আছেন।

সূত্রমতে, অতীতের মন্ত্রিসভাগুলোতে প্রবীণ-নবীন সমন্বয় করা হতো। প্রবীণদের প্রাধান্য থাকত। নবীনদের সংখ্যা কম থাকত। তবে এবার সেই রীতি নাও থাকতে পরে। সব মিলিয়ে এবারের মন্ত্রিসভায় প্রকৃত অর্থেই বড় ধরনের চমক থাকছে বলে মন্তব্য করেছেন ক্ষমতাসীন দলের একাধিক নীতিনির্ধারক।

আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী সূত্রে জানা গেছে, এবারের মন্ত্রিসভার কলেবর বাড়ছে। তরুণদের স্থান দিতে গিয়ে এই কলেবর বাড়ানোর চিন্তা করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সূত্র আরও জানায়, মন্ত্রিসভায় নতুনদের মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের ছোট ভাই একে আবদুল মোমেন, আইন প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শ ম রেজাউল করিম, স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. আবদুল আজিজ, স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী পুলিশের সাবেক আইজিপি নূর মোহাম্মদ, সাংস্কৃতিকবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী আকবর হোসেন পাঠান ওরফে নায়ক ফারুকের নাম শোনা যাচ্ছে।

মন্ত্রিসভায় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তরুণ খালিদ মাহমুদ চৌধুরীকে প্রতিমন্ত্রী করা হতে পারে। এ ছাড়া নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, উপাধ্যক্ষ আবদুস শহীদ, গোলাম দস্তগীর গাজী, নূর-ই আলম চৌধুরী লিটন, দীপঙ্কর তালুকদার স্থান পেতে পারেন নতুন মন্ত্রিসভায়।

আ ম উবায়দুল মুক্তাদির চৌধুরী, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের ছেলে নাজমুল হাসান পাপন, ডা. হাবিবে মিল্লাত, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি একেএম রহমতউল্লাহ, জাতীয় নেতা তাজউদ্দীন আহমদের কন্যা সিমিন হোসেন রিমি, জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ মন্ত্রিসভায় স্থান পেতে পারেন। ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ও রাজশাহী-২ আসনের পর পর তিনবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশার নামও শোনা যাচ্ছে।

টেকনোক্র্যাট কোটায় অর্থনীতিবিদ ড. ফরাসউদ্দিনকেও মন্ত্রিসভায় স্থান দেয়া হতে পারে বলে শোনা যাচ্ছে।

দলের মনোনয়নবঞ্চিত হয়েছেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক- জাহাঙ্গীর কবীর নানক ও আবদুর রহমান এবং সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম ও বিএম মোজাম্মেল হক। এদের মধ্যে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক থেকে টেকনোক্র্যাট কোটায় একজন মন্ত্রী বা প্রতিমন্ত্রী ও সাংগঠনিক সম্পাদক থেকে একজনকে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী করা হতে পারে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত